সিসিবি বিশ্বকাপ ফুটবল প্রেডিকশন-২০১৮

বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ মাঠে গড়াচ্ছে আজ, একই সাথে মাঠে নামছে ‘সিসিবি বিশ্বকাপ ফুটবল প্রেডিকশন-২০১৮’।

সফল প্রেডিকশন করে নিজেকে ফুটবল বোদ্ধা বা ভবিষ্যতদ্রষ্টা প্রমানের এই অভাবনীয় সুযোগ কাজে লাগানোর জন্য যোগ দিন সিসিবির প্রেডিকশন যুদ্ধে। যদিও প্রেম ও যুদ্ধে কোন নিয়ম কানুন থাকার কথা নয় কিন্তু আমাদের এই যুদ্ধ হবে নিয়ম কানুনের বেড়াজালের মাঝেই। সহজ সরল এই নিয়ম কানুনগুলো হলোঃ

১। আপনি ইতিমধ্যে সিসিবির নিবন্ধিত সদস্য হলে লগ ইন করুন,

বিস্তারিত»

বোনারপাড়া রেলওয়ে জংশন

কোন পীর আউলিয়ার নামে নয়,
যেমন জালালাবাদ, জামালপুর।
কোন সাহসী নারীর নামে নয়,
যেমন চৌধুরাণী বা ভবানীপুর।
তবু করি সেই অখ্যাত নাম স্মরণ,
বোনারপাড়া রেলওয়ে জংশন!

বুকে ধরা ছিলো চারটে প্লাটফর্ম।
স্লিপার বসানো, পাথর বিছানো
সমান্তরালে আঁকাবাকা রেলপথে
দিনে রাতে ট্রেনগুলো ছয়দিকে
আনমনে আনাগোনা করতো দ্রুত।
বসত ভিটেয় কাঁপুনি লাগিয়ে যেত।

যমুনার ভাঙ্গনে তিস্তামুখ ঘাট
স্থান বদলাতো প্রায় হঠাৎ হঠাৎ।

বিস্তারিত»

একদিন এমনই হবে

একদিন সন্ধ্যা নামার আগেই,
আকাশের মেঘ ফুঁড়ে ঝিলমিল তারারা বেরিয়ে আসবে,
শুক্লা তিথির চাঁদের সাথে ওরা প্রতিযোগিতায় নামবে-
কে তোমার নজরে আগে আসতে পারে!

তোমার দৃষ্টি থাকবে দূরান্তের ক্ষুদ্রতম নক্ষত্রটির ওপর,
দেখবে, সেও দূর থেকে বিচ্ছুরিত আলোর রশ্মি ছড়িয়ে
তোমাকেই ডাকছে। সেদিন তুমি বুঝে যাবে-
সত্যকে যারা বুকে বেঁধে রাখে, তাদের চন্দ্র সূর্য গ্রহ তারা
সবাই কুর্ণিশ করে পথ দেখায়।

বিস্তারিত»

সহজ মানুষঃ এক

ইতা অনেখ দিন আগের খতা,

আমরা যে সময় হুরু আছলাম ই সময় ফত্যেখ দিন ইসকুলে যাইতাম খেনে তোমরা জানো নি?
ইসকুলর উটানর গাছ থাকি বরই আর ছফরি ছুরি খরি খাওয়ার লাগি। (ফরা-লেখার লাগি নায়)

আর এখন যেতা হুরুতায় ফত্যেখ দিন ইসকুলে যায়, তারা খেনে যায় ই বিষয়ে জানো নি?
আমরার সিলটি সুন্দর ফুরি দেকিয়া আড্ডা দেওয়ার লাগি আর গাছর ছিফাত,

বিস্তারিত»

কুকুর

এক.
“ঘেউউউউ”।
গাজী সাহেবের ঘুমটা ভেঙে গেল। মাথার কাছে টেবিলে রাখা ঘড়িটার দিকে চাইলেন তিনি। রাত তিনটা বাজে। চারদিক সুনসান।
বাইরে থেকে আবার আওয়াজ ভেসে এলো, “ঘেউউউউ”। এবং এরপর ক্রমাগত ঘেউঘেউ চলতেই থাকলো।
বিরক্ত হয়ে গাজী সাহেব বারান্দায় বেরিয়ে এলেন। এলাকার নেড়ী কুত্তাটা তাঁর বারান্দার সামনে দাঁড়িয়ে ক্রমাগত ঘেউঘেউ করেই চলেছে।
তিনি বেরিয়ে আসতেই অবশ্য কুকুরটা অন্যদিকে দৌড় দিল। ভয় পেয়েছে হয়তো।

বিস্তারিত»

ছায়া কিংবা ছবিঃ চার

একটা ছেলে দেশ থেকে অনেক দূরে, খানিকটা অভিমান, খানিকটা অহং আর খানিকটা ভাগ্য মিলিয়ে। মাঝে মাঝে ভাত খেতে বসলে দেশের খাবারের সেই স্বাদের কথা মনে পড়ে যায়। এখনো সে দেশ নিয়ে ভাবে, দেশের প্রকৃতির ছবি, দেশের মানুষের হাসিমুখ কিংবা দেশের জয় দেখলে পুলকিত হয়।
মনে মনে কে যেন বলে, “বুঝি, এত পচা একটা দেশ, তবু কেন জানি তাকে না ভালবেসে থাকা যায় না।”

একটা মেয়ে জানে আরেকটা মানুষ বড্ড খামখেয়ালিতে পূর্ণ;

বিস্তারিত»

দূর ঢাকা ও নিয়মের বাইরে

ব্যস্ততার আড়ালে

এইটুক সবুজ খুজি বলে

অসিম নীলের ভিতর

আর কোন মিটিং-মিছিল নেই।

সূর্য ডুবে- আধারের সিগনাল

বাড়তে দেইনি ট্রাফিক জ্যামে,

বৃষ্টির ফোটা তাই আটকে রাখে

সময়ের দরজা।

ছোটছোট আনন্দের দ্বীপে লিখা আছে-

ভালো থাকার গান।

ফেসবুক মন্তব্য

বিস্তারিত»

ছায়া কিংবা ছবিঃ এক

মানুষটা আকাশের পানে চেয়ে থাকে। চকচকে শহরের ঝকঝকে আলোর ফাঁকে মেঘের আড়ালে আছে ঠান্ডা গোল চাঁদ। বেরিয়ে আসে, আবার ঢাকা পড়ে। জীবনে একবার প্রকাশিত হওয়া, আবার লুকিয়ে থাকার যুগপৎ চেষ্টা – লোকটি মনে মনে হাসে – হাসতে হাসতে চোখে জলের ধারা নামে। কেন কে জানে?

অনেক দূরে আরেকজন চেয়ে ছিল আরও বেশি তন্ময় হয়ে চাঁদের পানে। জোছনা গলে গলে নেমে আসছে যেন নদীর জল হয়ে।

বিস্তারিত»

একজন সুখী মানুষ ও তার বৃষ্টিবিলাস

কালাচাঁদপুর ব্রীজে সন্ধার পর আমরা প্রায় আড্ডা দেই । শামীমের দোকানে রাজনীতির আলাপ নিষিদ্ধ । একটা ভাংগা টুল, দাড়িয়ে থেকেই আমরা ঘন্টাখানেক পার করে দিতাম । অফিস শেষে ক্লান্ত শরীরটা যেন নিমিষেই শক্তি এনে দিত । আমি, সোহাগ, মঈন আর তন্ময়, বন্ধুদের গল্প কোনদিন শেষ হত না । মঈন বুয়েটের ছাত্র, পড়াশোনায় সবসময় খুব ভালো ছিল । তার কমপ্লেইন আমাদের জন্য সে লাইফে কিছু করতে পারিনি ।

বিস্তারিত»

তেমন কোন অভিযোগ নেই

তেমন কোন অভিযোগ নেই।
ওবায়েদুল্লাহ খান ওয়াহেদী।

না তেমন কোন অভিযোগ নেই আর
স্বপ্নের বিলাস ডুবে গেছে ক্ষয়িষ্ণু চাঁদ
অমাবশ্যার রাতে , উঠেনি সূর্য প্রাতে
কেটেছে দিন ব্রতে বিস্মৃত শত আহ্লাদ।
নেই কোথাও কোন তল্লাটে খোঁজ তার
অলস অবেহলা মুছে গেছে পায়ের ছাপ
জোয়ার জাগেনি জলে শ্রোত অণলে
প্রসাদ প্রণমিল সত্যরে শত অভিশাপ।

তবু আকাশ ভরিল তারকারা আলো
হিংসা উৎকট আরো নিকষিত কালো,

বিস্তারিত»

শুভ জন্মদিন জন্মদিন

পিতৃ ভুমির দায়বদ্ধতা,,,
মাতৃ ভাষার অমর কবিতা,,,,,,,,,,,

আমার একটা দুঃখ আছে সুখের প্রলেপ দেয়া,
সেই সুখেতেই কান্না আছে যত্ন করে পাওয়া।
সুখ দুঃখের আস্তাবলে কষ্ট লাগাম টানে,
বেদনা বিলাসে শান্তি বলো পেলাম কেমন করে?
পিতৃ ভুমির দায়বদ্ধতা,,,
মাতৃ ভাষার অমর কবিতা,,,,,,,,,,,

রাত্রিটাকে খুব ভালবাসি প্রখর সূর্য্য তাপে,
অমাবস্যায় অনেক কালো চাঁদনীর অনুতাপে।
ভুল করে যত জাগতিক ভুল স্বপ্নের কান্ডারী,

বিস্তারিত»

একুশের বইমেলা ২০১৮ ও কিছু এলোমেলো ভাবনা

আমার বই পড়ার অভ্যাস খুব ছোট বেলা থেকে। আমরা যারা গত শতাব্দীর শেষভাগে শৈশব কাটিয়েছি আবার এই শতাব্দীও দেখছি, তারা খুব ভালো করে সমাজ, দেশ, বিশ্ব সব কিছুর মধ্যে যে বড় ধরণের পরিবর্তন হয়েছে তা উপলব্ধি করতে পারি।

ছোট বেলার কিছু কথা কিছু টুকরো স্মৃতি বলে নেয়া দরকার। আমার বইয়ের হাতেখড়ি বড় ভাইয়ের হাত ধরে। বড় ভাইয়ের বই পড়ার নেশা ছিল। আমি তা দেখেই বড় হয়েছি।

বিস্তারিত»

তুমি বিহনে,,,,,,

তুমি বিহনে,,,,,,,,,,,,,,,,,

লিখতে গিয়ে হোঁচট খেলে
বুঝবো আমি কি?
তোমায় ছাড়া ছন্নছাড়া
আমি যে হয়েছি।
তোমায় পেলে মগজটাতে
প্রেমের সুবাস বহে,
তুমিহীনা অলস কলম
বন্ধ্যাত্ব সহে।
তোমার প্রলেপ পরলে বুকে
জোয়ার বয়ে যায়,
তুমি ছাড়া মরুভূমি
অববাহিকায়।
তুমি যখন আমায় খোঁজো
প্রফুল্ল হয় মন,
ফুলে ফুলে ফুলময় হয়
প্রেমের বৃন্দাবন।

বিস্তারিত»

সাতাশ বছর পরে – সাত

সেদিন ছিলো ভালোবাসা দিবস
আগেই পৌছে গেছি, মনে হলো
কিছু একটা ভুলে গেছি, সিঁড়ি দিয়ে
তাড়াহুড়া করে নামছি। এক ডজন
লাল গোলাপ আনতে। একটু পরে
থমকে গেলাম, সামনে নীলা সিঁড়ি
দিয়ে উপরে আসছে। ধ্যৎতেরিকি।

দুই হাত পিছনে লুকোলাম, ভাবটা
এমন হাতে কিছু ধরা আছে, বললাম
“নীলা তুমি বসো, আমি একটু আসছি।”

তাড়াহুড়ো করে গিয়েও লাভ হলো না।

বিস্তারিত»

~ আর কেউ নয়, ফুটুবলই জিতুক বিশ্বকাপ ~

বিশ্বকাপ ফুটবল একটা প্রতিযোগিতা না, উৎসব। চার বছর ধরে বিশ্বব্যাপী ফুটবলপ্রেমীরা বুভুক্ষের মতো অপেক্ষায় থাকে ফুটবল যাদুর মুগ্ধতায় প্লাবিত হতে। এই ফুটবলের সেরা তারকারা স্রেফ খেলোয়াড় নয়, ফুটবলের, এই উৎসবের এক একটি কুশলী দেবতা। তাদের নৈপুণ্য চাঁদ তারা নক্ষত্রের মতো মুগ্ধতার আলো ছড়াবে, এটাই ফুটবল আমোদীদের প্রার্থনা।

প্রথম যাদের খেলা দেখে মুগ্ধতা বেশী মাত্রায় গাঢ় হয়ে জমা হয় কারো মনে, সে হয়ে ওঠে সেই দল,

বিস্তারিত»

অগ্রগামী যাত্রী

আরোহী বিহীন রিক্সা কিংবা খোলা ভ্যান থেকে
যখন স্বয়ংক্রিয় একটি যান্ত্রিক ঘোষণা ভেসে আসে-
‘একটি শোক সংবাদ’ — ইত্যাদি ইত্যাদি,
আমি তখন আর আগের মত
কান পেতে উদগ্রীব থাকি না এ কথা জানতে-
হায়! কে চলে গেল!

ভেবে নেই–
যার সময় হয়েছে যাবার, সেই চলে গেল!
এ এক অমোঘ নিয়তি, অলঙ্ঘনীয়।
আমি শুরু করি আমার প্রস্তুতি,

বিস্তারিত»