ফেসবুক গেমস/এপস রিকোয়েস্ট বন্ধ করার সহজ উপায়

ফেসবুক আকর্ষনের অন্যতম প্রধান কারন হলো নোটিফিকেশন। নতুন কয়টি এবং কি কি নোটিফিকেশন আসলো তা জানার জন্য ফেসবুকারেরা একটু পরপরই ফেসবুকে ঢুঁ দেয়। কিন্তু মাঝে মাঝে এই নোটিফিকশনই হয়ে দাঁড়ায় চরম বিরক্তির কারন। হবেই বা না কেন? অনেক আগ্রহ নিয়ে নোটিফিকেশন বাটনে ক্লিক করে যখন দেখা যায় তার মাঝে বেশিরভাগই বিভিন্ন গেমস আর এপ এর রিকোয়েস্ট তখন মেজাজ বিগড়াতে বাধ্য। আর মোবাইলে যদি ফেসবুক নোটিফিকেশন এলার্ট অন করা থাকে তাহলে তো কথাই নেই, কিছুক্ষন পরপরই মোবাইল জানান দিয়ে ওঠে ক্যান্ডি ক্রাশ বা ক্রিমিনাল কেসের দাওয়াত।

কিছুদিন আগ পর্যন্ত আমি নিজেও এই সব দাওয়াতে চরম বিরক্ত ছিলাম। দাওয়াত না দেয়ার জন্য অনুরোধ করে স্ট্যাটাস, ইনবক্সে ম্যাসেজ কোন কিছুতেই কাজ হয়নি। শেষ পর্যন্ত খোঁজ পেলাম জুকারবার্গ সাহেবের যুগান্তকারী সমাধান। ইতিমধ্যে মনে হয় অধিকাংশ ফেসবুকারই এই পদ্ধতির খবর পেয়ে গিয়েছে, তারপরও আমার মত যারা একটু পিছিয়ে আছে তাদের সুবিধার্থে পুরো প্রক্রিয়াটা দিয়ে দিলাম।

১। সর্বপ্রথম ব্রাউজারে ফেসবুক ওপেন করে উপরের সর্বডানের ডাউন এরো বাটনে ক্লিক করুন। এরপর যে মেন্যুটি আসবে সেখান থেকে Settings এ ক্লিক করুন।
1
২। নতুন ওপেন হওয়া পেজ এর বাম পাশের মেন্যু থেকে Blocking এ ক্লিক করুন।
2
৩। এবারে ব্লকিং এর অনেকগুলো অপশন পাবেন, যার একটি হলো Block apps। এখানে যে এপ বা গেমস থেকে আপনি সকল নোটিফিকেশন ব্লক করতে চাচ্ছেন সেটির নাম (যেমন Candy Crash saga/Criminal Case) টাইপ করে সিলেক্ট করুন। এভাবে ব্লক করে দেয়া এপ বা গেমস এর কোন ধরনের কোন নোটিফিকেশন আর আপনার কাছে আসবে না।
4
৪। এছাড়াও আপনার বন্ধু তালিকায় যদি এমন কোন ‘সিরিয়াল রিকোয়েস্টার’ থাকে যে আপনাকে নিয়মিত বিভিন্ন এপ/গেমস এর রিকোয়েস্ট পাঠাতে থাকে যেগুলোর নামও হয়ত আপনি শোনেননি, তার হাত থেকে মুক্তি পেতে ব্লকিং পেজের Block app invites অপশনে ঐ ফ্রেন্ডের নাম টাইপ করে ব্লক লিস্টেড করে ফেলুন। তার কোন এপ রিকোয়েস্টই আর আপনার কাছে পৌছাবে না।
3

আশা করি এ পদ্ধতি অনুসরন করে আপনি ফেসবুকের সকল ধরনের অনাকাংখিত রিকোয়েস্ট থেকে মুক্তি পেয়ে নির্বিঘ্নে ফেসবুকিং চালিয়ে যেতে পারবেন।

শুভেচ্ছা!

৩,১০৭ বার দেখা হয়েছে

২০ টি মন্তব্য : “ফেসবুক গেমস/এপস রিকোয়েস্ট বন্ধ করার সহজ উপায়”

  1. মোকাব্বির (৯৮-০৪)

    এই প্রসঙ্গ ও অন্যান্য কারনাধীনে ব্যাসবাবা সুমন কোন এক দুর্বল দিনে গেয়েছিলেনঃ


    \\\তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা
    অবুঝ শিশু হামাগুড়ি দিল পিতামাতার লাশের ওপর।\\\

    জবাব দিন
  2. লুৎফুল (৭৮-৮৪)

    ভালো । যদিও আমার মাঝে মধ্যে ক্যান্ডি ক্রাশ খেলতে বা পুল খেলতে মন্দ লাগে না ।
    বিশেষ করে কনো কারণে মেজাজ খারাপ হলে বা ডিস্টার্বড হলে খুব মনোযোগ দিয়ে খেলতে থাকি । যতোক্ষণ না এটাতেই বিরক্তি আসে আর মনে হয় ধ্যাত ! হয়েছে । এবার কাজ করি ।
    বেশ বের হয়ে আসা যায় মাথা দপদপানো কোনো বিরক্তি বা রাগ থেকে ।
    যদিও আমি রিকু পাঠানো পর্যন্ত যাওয়ার তাগিদ অনুভব করি না সেই রকম ।
    তবু যারা পাঠায় তাদের এই দুই গেমে রেস্পন্ড করে ভদ্রতা আর সখ্যতা দুইই বজায় রাখি ।
    সো আমার কাছে অমন হাজারো গেম রিকু আসলে একটু হাসি । বিরক্ত হই না ।

    জবাব দিন
    • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

      মোবাইলে গেমস তেমন একটা খেলা হয় না বললেই চলে। হঠাৎ করে হয়ত একটা গেমস পছন্দ হয়ে যায়, টানা কিছুদিন সেটা খেলা হয় তারপর আবার বন্ধ। মাঝে একবার ইনভাটেশনের প্রেশারে আর টিকতে না পেরে ক্যান্ডি ক্রাশও খেলা শুরু করেছিলাম, কিছুদিন পর্যন্ত ভালই আটকে রেখেছিল।

      মাথা থেকে কোন কিছু তাড়িয়ে পুরোপুরি সুইচ অফ করে দিতে আসলেই এসব গেম বেশ কার্যকরী।


      আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
      আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

      জবাব দিন
  3. সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

    :) :) :) :)

    সিসিবির কভার ছবি বদলেছে দেখি! দেশের বষর্া সেলিব্রেশন দেখতে দারুণ লাগে আমার! বষর্া আমাদের ঘামঝরা নাগরিক জীবনে প্রশান্তি নিয়ে আসে। নিজের গহীনে লুকিয়ে থাকা শিশুটি ঘর থেকে বেড়িয়ে ছাদে হুটোপুটি খেলে! নিরামিষ টাইপের অকবিও সেই উপলক্ষে দুটি চরণ লিখে ফেলেন। খিচুড়ি ইলিশের কথা আর কী বলবো!

    সোশ্যাল মিডিয়াতে সময় দেবার মত সময় হয়না আর। এপস অথবা এইপস দুটোর হাত থেকেই বেঁচে গেছি তাই! :D

    জবাব দিন
  4. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    আমি ব্লকের পাশাপাশি আরও একটা কাজ করেছি- থার্ড পার্টি এপস এবং ওয়েবসাইট ব্যবহার করার প্ল্যাটফর্মও ডিজ্যাবল করে রেখেছি!
    যে কোন অনাকাঙ্খিত গেম, ইভেন্ট, সফট ইত্যাদির ইনভাইটেশন থেকে আমি মুক্ত! B-)


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  5. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    ক্যান্ডি ক্রাশ খেলার দাওয়াত যে মাঝে মাঝে একেবারে পাইনি তেমন নয়। তবে মারাত্মক বিরক্তির আকারে সেটা কখনো পৌঁছায় নি। তবুও, তোমার লেখাটি সংগ্রহে রাখলাম, ভবিষ্যতে কাজে লাগতে পারে এই ভেবে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।

:) :( :P :D :)) :(( =)) :clap: ;) B-) :-? :grr: :boss: :shy: x-( more »

ফেসবুক মন্তব্য