চৌইদ্দ জন ক্যাডেট নিখোঁজ হওয়ার কাহিনী

আবারও সেই সি এইচ এম এর কাহিণী। ক্লাস ইলেভেন এর এক্সকারসন এ আমরা সবাই যখন আনন্দে আত্মহারা,এক রাতে চৌইদ্দজন ক্যাডেট এর নিখোঁজ হওয়ার আচমকা এক সংবাদ ফর্ম মাস্টার,এডজুট্যান্ট,প্রিন্সিপাল,স্টাফ সবার রাতের ঘুমই শুধু কেড়ে নিলনা, জনৈক ফর্ম মাস্টারের বুড়ো বয়সে হানিমুন পালনকে ঘোর অমাবস্যার অন্ধকারে ডুবিয়ে দিলো।

তিন মাসের লম্বা ছুটি শেষ করে আসার পর এক একটি মস্তিস্ক তখন শয়তানের শিল্প কারখানা। কক্সবাজারে বার্মিজ মার্কেট এ রাখাইন কন্যা ভিও,

বিস্তারিত»

গরু, তোমরা সব গরু

“বেহেশতের দারোয়ানকে একটা রাঙামাটির তরমুজ দিও। তাহলে ওখানে সহজে ঢুকতে পারবে।” ভুগোল পড়াতে গিয়ে দেশের বিভিন্ন সম্পদের গুণমাণ বোঝাতে এমনটাই বলেছিলেন আমাদের শিক্ষক অধ্যাপক এম এ কাশেম।

গত শনিবার হৃদরোগের চিকিৎসা করাতে গিয়ে অপারেশন টেবিল থেকে তিনি আর ফিরে আসেননি। দীর্ঘদিন শিক্ষকতা করেছেন তিনি। শুধু ক্যাডেট কলেজেই ৩৪ বছর। ১৯৫৮ থেকে ১৯৯২ সাল। এর মধ্যে অল্প সময়ের জন্য বরিশাল ও কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজে গিয়েছিলেন।

বিস্তারিত»

মকবুল বুড়োর গ্রামে

খুব ভোরে ঘুমটা ভেঙ্গে গেলো। ফযরের আযান কানে এলো। নামাযটা পড়ে ভাবলাম যাই গ্রামটা একটু ঘুরেই আসি,কাল রাতেই বেড়াতে এসেছি এইগ্রামে। বাইরে এখনো অন্ধকার কাটেনি,আবছা আলোতে চারপাশ কেমন যেন রহস্যময় লাগছে। হাঁটতে হাঁটতেই বড় দীঘিটার পাশে চলে এলাম।
কি সুন্দর শাপলা ফুটে আছে দেখেই মনটা ভালো হয়ে গেলো। হঠাত একটা শব্দ কানে এলো,কারা যেন কথা বলছে,অন্ধকারে ভয় পেয়ে গাছের আড়ালে দাঁড়ালাম। তাকিয়ে দেখি দুজন নারীপুরুষ হাত ধরাধরি করে হাটছে,আর হাসাহাসি করছে,মেয়েটার হাত ভরতি শাপলা।

বিস্তারিত»

আমার আপুসোনা-২ (এক স্বপ্নের সকাল)

(এক স্বপ্নের সকাল)
********************

-তপুউউউউ , উঠলি তুই?
-উমমম…
-এই নিয়ে আমি ১০ বার ডাকলাম । উঠ।
-হুমম এইতো আপু আর একটু।
-নাহ আর একটুও না। তোর না আজ ক্লাস আছে।
-আরে আপু কি কর , বালিশ সরাও কেন। উঠতেছি তো।
উফফ কি যে সমস্যা। এই বৃষ্টির সকালে কি আর কোথাও যেতে ভাল লাগে। আজকে ক্লাস আছে কিন্তু এর থেকে এই বৃষ্টিতে ঘরে বসে ১১টা পর্যন্ত ঘুমানোর উপরে কিছু কি আছে?

বিস্তারিত»

গোবর থেরাপি

আমাদের এক ক্লাসমেটের গালে খুব ব্রণ ছিল।ও একদিন জানতে পারল যে যদি মুখে সদ্য ত্যাগ করা গোবর মেখে ৩ ঘন্টা রাখা যায় তবে সে এই ব্রন হতে মুক্তি পাবে। কি আর করা সে তার ঘনিষঠ একজনকে নিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ১২ টার সময় কলেজ ডাইনিং এর পিছনে বাঁধা গরুর লেজের কাছে অপেক্ষা করতে লাগল…এর মাঝে ও কিছু ঘাস ও দিল গরুটা কে যাতে করে একটু তাড়াতাড়ি করে।

বিস্তারিত»

প্যারেড গ্রাউন্ডে স্টাফ প্রদত্ত কতিপয় ডায়ালগঃ(নিজ সতর্কতায় পড়ুন)

(ক্যাডেট কলেজের ৬ বছরে কিম্ভুতকিমাকার বহু স্টাফের সাথে আমার বেশ ‘দহরম মহরম’ ছিল।এছাড়া আমি প্রায় ৩ মাসের মত বি এম এ ছিলাম-সেখানেও কতিপয় স্টাফ ছিলেন যাদের কিছু উক্তি এখনও হাসির খোরাক যোগায়।আর কথা না বাড়িয়ে সেগুলো কিছু তুলে দিচ্ছিঃ)

১। তাহসিন সাহেব আপনার তালব্য শ কি বেশি বড় হয়ে গেছে?ঠিক মত পা তুলেন না কেন?

২।কি শাহেদ সাহেব,হাসি কিসের?বাসর রাইতের হাসি এইখানে কেন?

বিস্তারিত»

আমার (ক্যাডেট) জীবনের প্রথম চুরির ঘটনা

তখন ক্লাস ৮ এ পড়ি। প্লান করলাম লিচু চুরি করব। মূল দল এ আছি আমি,আসাদ আর কুত্তা(ছদ্দ নাম কারন ও কুত্তার মত ডাকতে পারত)ওর কাজ ছিল পাহারা দেওয়া।
ওকে দিয়েছি ক্যান্টিনের কোনায়। রাত ৩ টা। আসাদ এসে আমাকে ঘুম থেকে ওঠায়। সবার পরনে ছিল কাল প্যান্ট,খাকী পুল ওভার আর পিটি সু,প্রথমেই ঘাপলা,বৃষ্টি পড়ছে,একবার মনে হলো প্লান বদল করি।
পরে সবার মত দিল না ।

বিস্তারিত»

আমার আপুসোনা-১

[ডিসক্লেমার – সবাই এখন ক্যাডেট কলেজের স্মৃতিচারণ করছে। আমার ও অনেক কিছু লেখার ছিল কিন্তু অনেকদিন ধরে বেশ ব্যস্ত সময় পার করাতে একটু লেখার সাথে কোন সম্পর্ক নাই। তাই একটা অফটপিক পুরান লেখা দিয়ে দিলাম। কেউ মাইন্ড খাইয়েন না। আগে আমাদের এখানে চাটনি হিসাবে কিছু লেখা দিত তারেক(কনফুসিয়াস) ভাই। উনি বহুদিন চাটনি দেয়া বন্ধ করে দিছেন। আমার এই লেখা তাই সবাই চাটনি হিসাবে নেন। ওহহ এখন এত ভাল ভাল লেখক আমি লেখালেখি করি এইটা বলতে নিজেরই লজ্জা লাগছে।

বিস্তারিত»

গভীর রাতে কয়েক কিশোরের অ্যাডভেঞ্চার

তখন ছিল গভীর রাত। শীতকালে রাত ১২টা মানেই অনেক। পেছনে পাহাড় আর সামনে বঙ্গোপসাগরের মাঝখানে সবুজের এক সমতলে ইট-কাঠ মাঝে নিয়ে গাছগাছালির ১৮৫ একরের বিশাল ক্যাম্পাসে সবাই ঘুমিয়ে। নাইট গার্ড কয়েকজন লাঠি নিয়ে ক্যাম্পাস পাহারা দিচ্ছে। আর একটু পরপর হুইসেল বাঁজিয়ে তাদের চলছে পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ। সময়টা ১৯৮০ সাল।

এমন সময় ডাইনিং হলের পেছনে একে একে এসে জড়ো হলো আট-দশজন কিশোর। সবার বয়স ১৭-১৮ হবে।

বিস্তারিত»

আজকে রেজাল্ট ছিলো

আজকে এস.এস.সির রেজাল্ট দিয়েছে। প্রতিবছর এইদিনটাতে আমি অতি উদ্বিগ্ন মুখ নিয়ে টিভির সামনে বসে থাকি, বেশির ভাগ সময়ই আমার আত্মীয় স্বজন কেউ থাকে না পরীক্ষার্থীর মাঝে, থাকে এমজিসিসির কয়েকজন বাচ্চা পুলাপাইন।
এবার এমজিসিসির সবাই জিপিএ ফাইভ, সব্বাই।
চোখে পানি চলে আসলো। একদম ঝরঝর করে পানি চলে আসলো।
টিভিতে দেখা গেলো কয়েকটা মেয়ে ইয়েল দিচ্ছে, চেনা মুখ পেলাম না কোন, কি আশ্চর্য! বেশি দিন তো হয়নি কলেজ ছেড়ে আসছি!

বিস্তারিত»

ক্যাডেট জীবন : বন্দীত্ব না মুক্তি

লেখাটা লিখেছিলাম আমাদের ব্যাচের ব্লগসাইট www.ccr19.com এ আমাদের ক্যাডেট কলেজে ভর্তির 14 তম বার্ষিকী উপলক্ষে । বাইরের সবাই ভাবে ক্যাডেট কলেজ বুঝি একটা জেলখানা । ক্যাডেট কলেজে থাকার সময় আমারও এমনই ধারনা ছিল। কিন্তু যখন কলেজ থেকে বের হলাম দেখলাম আসলে ক্যাডেট কলেজেই বেশি উপভোগ করেছি সময়টা। নিয়মের মধ্যে থেকেও যেন অন্যরকম স্বাধীন ছিলাম। আমার কবিতাটা এ উপলদ্ধি থেকেই লেখা। আপনাদের মতামত জানতে পেলে খুশি হবো।

বিস্তারিত»

এরশাদকে কালো পতাকা দেখিয়েছিল কিছু তরুণ

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে যখন খুনি চক্র সপরিবারে হত্যা করে তখন আমার বয়স মাত্র ১৪। অষ্টম শ্রেনীতে পড়ি। একে তো ওই ঘটনার তাৎপর্য বোঝার বয়স তখন ছিল না; দ্বিতীয়ত, ক্যাডেট কলেজের মতো সেমি কারাগারে রাজনীতিটা একরকম নিষিদ্ধ বস্তু। মনে পড়ে, ক্লাস কক্ষে একজন শিক্ষক এসে আমাদের বঙ্গবন্ধু হত্যার তথ্যটি জানিয়েছিলেন। ব্যাস ওইটুকুই।

১৯৮১ সালে যখন চট্টগ্রামে জিয়াউর রহমানতে হত্যা করা হয়, তখন আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে পড়ি।

বিস্তারিত»

toilets

strange..Cadets like toilets. I still didn’t find any suitable reason,but i know current cadets also love their toilet(academy block). Had there not been any toilet in academy block, lets investigate, what would we miss in the six years golden time(for me, 1994-2000, JCC 31):
****lists exclude the usual urinal business****
1. Surely its a kingdom of Class 8 cadets. We would miss their global(all houses) seniority.

বিস্তারিত»

চাপাতির সঙ্গে আমার ছয় বছরের শত্রুতা

চাপাতি খেয়েছেন কখনো?

আঁতকে উঠবেন না। এটা আঘাত করার অস্ত্র নয়। নিতান্তই সহজপাচ্য একটা খাদ্যপণ্য। এটা গমের আটা দিয়ে তৈরি।

আটার রুটি বললে আমাদের চোখে সহজেই ভাসে একটি খাদ্যের চেহারা। রুমালি রুটি, গরম গরম পেলে মনে হয় মাক্ষন্! কিন্তু গমের আটা দিয়ে তৈরি চাপাতি কি জিনিস?

১৯৭৪ সালের ১৪ আগস্ট লাল্টু-পল্টু ধরণের ৫৬টি বালক (শিশু বললে কি খারাপ শোনায়?

বিস্তারিত»

পাহাড় চূড়াটা আমাকে নির্জনতায় মগ্ন হওয়ার সাহস জোগায়

কলেজ ক্যাম্পাসে আমার একটা প্রিয় জায়গা ছিল ডাইনিং হলের পেছনের পাহাড় চূড়া। কতো রাত ওখানে বসে সাগরের গান শুনেছি! বন্ধু মামুন অথবা শাহীনকে নিয়ে ওই চূড়ায় বসে হতো কিশোর বয়সের কতো গল্প! কখনো কখনো গলা ছেড়ে গান, তাও চলতো। ওখানে বসে শাহীন গান তুলতো উঁচু গলায়, বব মার্লি কিম্বা জোয়ান বায়েজের সঙ্গে প্রথম পরিচয় আমার এই ক্যাম্পাসেই।

অমাবশ্যা অথবা পূর্ণিমা যে কোনো রাতেই ছোট্ট এই পাহাড় চূড়াটা ছিল দারুণ।

বিস্তারিত»