আমার ক্যাডেট বেলা -৪ (ক্লাস এইট পর্ব)

প্রথম পর্ব থেকে…

বছর শেষে নতুন বছর আসলো তাকে হাই দিলাম
ক্লাস এইটের হাতটা ধরে সেভেনকে গুডবাই দিলাম।
ঘাম ঝরানো একটা বছর ক্যামনে যে শেষটায় এলো
গান্ধা থেকে ক্যাডেট হবার প্রাণান্ত চেষ্টায় গেলো।
এইটে এসেও হয়না তো শেষ ক্লাস সেভেনের সীনগুলো
চলছে টু বি কন্টিনিউড ঘাম ঝরানো দিনগুলো।
অষ্ট প্রহর কষ্ট করে বেগার খাটি কামলাতে
অলস সময় ব্যস্ত কাটে সব সিনিয়র সামলাতে।

বিস্তারিত»

অনেক আগে তোদের মতই ছিলাম …

অনেক আগে তোদের মতই ছিলাম … আবার আস্তে আস্তে তোদের মতই হব । কি বলিস তোরা ?

ফেসবুক মন্তব্য

বিস্তারিত»

কিছু ঘটনা

এমজিসিসি এর কাহিনি পড়ে আমারও কিছু ঘটনা মনে পরে গেলো।
তখন আমরা ক্লাস XII এ মাত্র উঠেছি। ICCFM এর জন্য ৭দিন অতিরিক্ত ছুটি পেলাম। তো ময়মনসিংহে আমরা বিভিন্ন কলেজের প্রায় ৭-৮ জন ছিলাম। আমরা আবার আড্ডা দেয়ার জন্য একত্রিত হতাম এমজিসিসি তে। কারন এমসিসি এর তানভির এর বাসা ছিল সেখানে। আবার প্রিঞ্ছিপাল এর ছেলে আমাদের ফ্রেন্ড হওয়াতে আমাদের কেউ কিছু বলতনা।
ঘটনা-১; আমরা ১দিন সন্ধ্যার পর বাস্কেটবল গ্রাউন্ডে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম।

বিস্তারিত»

জলপাই রঙের গল্প

১.

গেমস টাইমের মার্চ-আপ। সি.এইচ.এম ফরিদ স্টাফ এডজুট্যান্টের কাছে স্টেটমেন্ট জমা দিচ্ছেন। এমন সময় আনোয়ার স্টাফ চিৎকার দিলেন…
‘জসিম ডন্ট মুব .. ডন্ট মুব’
আমরা একে অন্যের মুখ চাওয়া চাওয়ি শুরু করলাম। পুরা কলেজে জসিম নামে কোন ক্যাডেট নাই। আনোয়ার স্টাফ কাকে বলছেন। এরমধ্যেই আবার চিৎকার……
‘জসিম নড়তাছে কেন? জসিম ফল-আউট, ফল-আউট বলছি’
আমরা এদিক ওইদিক তাকাইতে লাগলাম কে ফল-আউট হয় দেখার জন্য।

বিস্তারিত»

আগামীকাল ১৭ জুন

আমরা তিন ভাইয়ের মধ্যে আমরা ছোট দুই জন একেবারে পিঠাপিঠি,নাহ আমাদের পিঠ একসাথে লেগে থাকতো না কিন্তু পিচ্চি কালে সকল কান্ড আর অকান্ডের সাথী আমরা দুইভাই।খালি বাসায় বিছানার উপরে কোলবালিশ দিয়ে মারামারি খেলা আর আম্মু বাসায় আসলে ঘর এলোমেলো করার অপরাধে হালকা মাইর খেতে তখন থেকেই ভালো লাগতো।এই আনন্দের বাধ সাধলো যখন থেকে আমাদের বড় ভাইটা একটু বড় হয়েই আম্মুর খুব বাধ্যগত হয়ে ঘর টর গোছানো শুরু করলো।বড়ভাইয়ার যন্ত্রনায় বিছানার উপরে বসাতো দুরের কথা সোফায় বসার সাহসও পেতাম না।অগত্যা মাটিতে বসে থাকতে হতো আমাদের দুইজন কে।এইটা নিয়ে বড়ভাইয়া এতই অত্যাচার করতো এখনো আমি সাজানো বিছানা অথবা সোফায় বসতে ভয় পাই কখন যেন বড়ভাইয়া চলে আসে।বড়ভাইয়ের এহেন অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সাহস আমার কখনো হয়ে উঠেনি কিন্তু তপু ভাইয়াকে দেখতাম মাঝে মাঝে প্রতিবাদ করে জোর করেই বিছানায় শুয়ে যেত ,আর শুরু হতো সিডর।সেই সিডর এবং সিডর পরবর্তি সময়টাতে আমারই সবচেয়ে সমস্যা হতো।সমস্যাটা হত আমি কাকে সাপোর্ট করবো তা নিয়ে।কারন তিন ভাইয়ের মধ্যে দুইজনের গ্যাঞ্জাম লাগলে অন্যজন যেইদল নিবে সেই দলই জয়ী তাছাড়া আম্মুর জিজ্ঞাসাবাদের সময়ও আমার সেই সাপোর্টএর একটা ভূমিকা ছিলো।সুবিধাবাদী আমি তখন সিডর পূর্ববর্তি সময়ে
আমার সাথে যার খাতির বেশি থাকতো আম্মুর মাইরের হাত থেকে তাকেই বাঁচায় দিতাম।

বিস্তারিত»

ছোট দুটি ঘটনা

“কোথায় পাবো তাদের – ২” ব্লগ টা পড়তে পড়তে কলেজ এর দুই-একটা ঘটনা মনে পড়ে গেল। সব কলেজেই এই ধরনের কেউ না কেউ থাকে যারা যৌন সুড়সুড়ি মুলক কথা গুলো খুব রসালো করে ক্যাডেট দের সামনে পেশ করে। আমরা খালি ঘুরে ফিরে সেই কথাই শুনতে চাইতাম স্যারদের কাছে। আমরা কলেজ এ দুই জন ইসলামীয়াত এর স্যার পাইছি। তারা দুজন নিজ নিজ
গুনে গুনান্বীত। বিল্লাহ্‌ স্যার তার নাম অতি শুদ্ধ করে উচ্চারনে “বিল্লাহ্‌”

বিস্তারিত»

জলপাই যুদ্ধ…

উফফ!! মশাগুলা এত্তো জ্বালায় ক্যান? কামড়াবি কামড়া- কিন্তু কানের কাছে গান গাওয়ার দরকারটা কি? বিরক্তিতে নিজের পায়ে আশিমন ওজনের একটা থাপ্পড় কষালো তানভির।

সে এখন বসে আছে রসুলগঞ্জ বাজার থেকে দুই মাইল দূরে একটা ধানক্ষেতে…একটু আগে তারেক ভাই বললেন তাদের আরও একঘন্টা অপেক্ষা করতে হবে। একঘন্টা অনেক দীর্ঘ সময়। তানভির একটা সিগেরেট ধরিয়ে মাটিতে মাথা এলিয়ে দিলো। আজকের আকাশটা অনেক পরিষ্কার…কতো তারা জ্বলজ্বল করছে।

বিস্তারিত»

সিক রিপোর্ট

বেশ রকমের একটা ঝামেলা পেরিয়ে ব্লগটা মাত্রই আবার শুরু হলো। এখনো সব কিছু ঠিক ঠাক গুছিয়ে ওঠা হয়নি। সমস্যা রয়ে গেছে বেশ কিছু। তবে সবার সহযোগিতায় অচিরেই সেগুলোও দূর করা সম্ভব হবে।

এই পোস্টটা খোলা হল কার কি সমস্যা হচ্ছে এই ব্লগ ব্যবহার করতে সেটা জানার জন্য। কোন ব্রাউজারে দেখতে কি রকম সমস্যা হচ্ছে সেটাও অনুগ্রহপূর্বক জানান।

আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করবো।

বিস্তারিত»

বর্ন টু বি আ ক্যাডেট

এইতো কয়েকদিন আগের কথা। সেমিস্টার ব্রেকের ছুটিতে বাসায় গিয়েছি। আই ইউ টিতে থাকলে ভোর চারটা বাজিয়ে শুতে গেলেও বলার কেউ নেই। কিন্তু বাসায় গেলে বারোটা বাজার আগেই লক্ষী ছেলের মত বিছানায় যাই। এরকমই এক রাতে বারোটার পর হঠাৎ নকিয়া ১১০০ এর চিল্লাচিল্লিতে ঘুমটা ভেঙ্গে গেল। এক রাশ বিরক্তি নিয়ে চোখটা কোনমতে খুলে বোঝার চেষ্টা করছি এত রাতে কার আবার আমার কথা মনে পড়লো। কিন্তু মোবাইল স্ক্রীণে নামটা দেখেই সব বিরক্তি চলে গেল।

বিস্তারিত»

একটা প্র্যাক্টিক্যাল জোকস

আমার খালু কুমিল্লা থাকেন।উনার বাসা ভাড়া নিতে এক ভদ্রলোক আসছেন।ভদ্রলোক বলতেসেন “ভাই আমার একবারে ছোট ফ্যামিলি।আমি ,আমার বড়ভাইয়ের বউ আমার ভাই দেশের বাইরে থাকে আর আমার ওয়াইফ।আর আমার একটা বেবী( baby)আছে।তখন আমার খালু বলতেছে…”ভাই আমার তো গ্যারেজ নাই……………….!!!!”

ফেসবুক মন্তব্য

বিস্তারিত»

দিবাস্বপ্নঃ আমি, ফুয়াদ, সামিয়া

এইমাত্র জেগে উঠেছি, একটি স্বপ্ন অসমাপ্ত রেখে। দিবাস্বপ্ন ছিলো সেটা, অতএব বেশ একটা সত্যতার দাবি রাখেনা, তথাপি স্বপ্নের একটা মধুর সমাপ্তি না হলে অতৃপ্তিটা রয়েই যায়। তাও যদি হয় প্রিয় কিছু মানুষকে নিয়ে, তবে তো আফসোসের অন্তই থাকেনা।
হ্যাঁ, আজ আমার স্বপ্নে এসেছিলো এই ব্লগের দু’টি প্রিয় মুখ। ফুয়াদ আর সামিয়া।

ওরা এসেছে আমাদের বাসায় বেড়াতে! আমি সারাদিন আজ বাইরে ছিলাম, ইজি কাজে বিজি।

বিস্তারিত»

অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে…

{কয়েকদিন আগে আমাদের কলেজের একজন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছিল। তার পুরো ঘটনার বিবরণ দিয়ে সে আমাদের intake yahoo group এ একটি mail করে, তা বঙ্গানুবাদ করে এইখানে পোস্ট করলাম}

সোমবারে বাসে আমার পাশের এক লোক অতি কৌশলে আমাকে একটা ডাব কিনাইসে, ডাব বিক্রেতাও এর সাথে জড়িত। আমি বুঝতে পারছিলাম যে আমি বোকামি করে ডাবটা কিনতেছি, কিন্তু আমার মাথায় ছিল না যে এইটা আজ্ঞান পার্টি হতে পারে।

বিস্তারিত»

কোথায় পাবো তাদের‌ -২

১.

রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ইসহাক আলী সরকার স্যার কে আমরা ডাকতাম ‘সেক্স আলী সরকার’ । সোমবার ফোর্থ পিরিয়ডে স্যারের ক্লাস ছিল। সেদিন আমদের স্পেশাল প্রিপারেশণ থাকতো। আমরা অনেকে ডাবল আন্ডারঅয়ার পরে ক্লাসে যেতাম। যারা আন্ডারঅয়ার পরতো না তাদেরও এটলিস্ট একটা আন্ডারঅয়ার পরতে হতো। কারণ রাষ্ট্রবিজ্ঞানের যেকোনও বিষয়কে স্যার ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সেক্সের দিয়ে নিয়ে যেতেন এবং তারপর এতো গভীর ভাবে ওইটা নিয়ে আলোচনা করতেন যে আমাদের প্যান্টের জিপারের জায়গায় তাঁবু হয়ে যেতো।

বিস্তারিত»

‘এক্স’ ও ‘ওয়াই’ কেমন বন্ধু???

ক্যাটাগরী-১ : প্রচলিত বন্ধুত্ব:

—————-

দুই বন্ধু ‘এক্স’ ও ‘ওয়াই’।তারা একদিন বনে বেড়াতে গেল।হঠাৎ ‘ওয়াই’ দেখল একটি ভালুক আসছে।বাচার জন্য সে ‘এক্স’ কে না জানিয়েই দৌড় শুরু করল।’এক্স’ যখন ভালুকটাকে দেখল তখন অনেক দেরী হয়ে গিয়েছে।অগ্যতা সে মরার ভান করে পড়ে থাকল কারন ভালুক নাকি মরা মানুষ খায়না।যাক,ভালুক এসে ‘এক্স’ কে শুকে-টুকে চলে যাওয়ার পর ‘ওয়াই’ এসে জিজ্ঞেস করল,ভালুক তোকে কি বলে গেছে??’এক্স’ বলল,ভালুক তাকে বলে গেছে,যে বন্ধুর বিপদের সময় পালিয়ে যায় সে প্রকৃত বন্ধু নয়।

বিস্তারিত»