অন্ধকার

আমি অন্ধকার দেখেছি

রাত্রির কোমল শরীরে যার প্রগাঢ় ছায়া।

আমি অনেক হেঁটেছি;

শহরের এমাথা-ওমাথা,এগলি-ওগলি

প্রহরীর সজাগ দৃষ্টিতে যখন ক্লান্তির মায়া।

হঠাৎ থেমেছি

পায়ের চলার শব্দ থামিয়ে কান পেতেছি

বাতাসের পরে ভেসে আসে কার দীর্ঘশ্বাস?

নাকি কান্নার আভাস?

হৃদয়ে? নাকি অন্ধকারে?

অনেক বৃষ্টির পরে-

যেমন ধুসর মেঘের আকাশ।

বিস্তারিত»

ক্যাডেট কথিকাঃ পর্ব ২

তিনতলার পেছনের ব্লকের দ্বিতীয় রুমটি আমার জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। কেউ একজন জানালো, আমার নতুন ঘর বাড়ি সরেজমিনে দেখতে মা হাউসে যেতে পারবেন কিন্তু বাবাকে অডিটোরিয়ামে বসে থাকতে বলা হলো। অগত্যা বাবার থেকে বিদায় নিয়ে আমরা হাউসের দিকে রওনা দিলাম। আসিয়া খাতুন নামের একজন অল্প বয়েসী মহিলা আমাদের সেখানে পৌঁছে দিয়ে গেল। নির্ধারিত রুমে ঢুকে দেখি আমার আগেই দুই জন ক্যাডেট চলে এসেছে। একজন শ্যামলা মতন দেখতে,

বিস্তারিত»

ফ্লার্ট সমগ্র – তৃতীয় পর্ব

ফ্লার্ট সমগ্র – প্রথম পর্ব
ফ্লার্ট সমগ্র – দ্বিতীয় পর্ব

ছয়
ভেবে দেখলাম, এইভাবে “ফ্ল্যার্ট কতপ্রকার ও কি কি” জাতীয় লিখাটা বেশ লেকচার টাইপের ও বোরিং হয়ে যাচ্ছে।
তারচেয়ে বরং ফ্ল্যার্ট নিয়ে ভিন্ন কিছু প্রসঙ্গের অবতারনা করি আজ।
মতলবি ফ্ল্যাটারদের এপ্রোচ প্রসঙ্গটা আপাততঃ তোলা থাক, অন্য কোনো একদিনের জন্য…

ফ্ল্যার্ট নিয়ে থাকা কিছু কিছু ধোঁয়াশা দূর করার চেষ্টা করি প্রথমেই।

বিস্তারিত»

মায়াবতী মেঘ

এক মায়াবতী মেঘ আমায় ছায়া দিয়েছিল,
হাওয়ায় ভেসে ভেসে আমার কাছে এসেছিল।
সে মেঘ আমায় কথার ছলে গল্প বলেছিল,
তার গল্প শুনে আমার চোখে স্বপ্ন ভেসেছিল।

মায়াবতী মেঘের বুকে অনেক কান্না জমা ছিল,
দেখতে পেলাম চোখ দুটো তার যখন ঝরেছিল।
যখন তৃষিত এক মরু বুকে তার অশ্রু পড়েছিল,
লক্ষ গোলাপ একটি রাতেই হঠাৎ ফুটেছিল!

ঢাকা
০৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৭
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।

বিস্তারিত»

জীবনের পুল পুশ ফ্যাক্টরঃ

জীবনে আমার যেটুকু এগিয়ে যাওয়া, তার অধিকাংশই কোন না কোন পুল-পুশ ফ্যাক্টরের কারণে হয়েছে। কখনো কেউ একটু পুশ করেছে, কখনো কেউ একটু পুল করে নিয়েছে, আর মাঝে মাঝে কোন কিছুতে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে নিজেই সেলফ স্টার্টেড হয়ে সামনে দৌড়িয়েছি। সেখানেও কোন প্রণোদনা হয়তো পুশ করেছে, নয়তো পুল।

৩৩ বছর কলমের খাপটাকে বন্ধ রেখেছিলাম। দূরের বন্ধু (টেনিসি প্রবাসী) ড. হুমায়ুন কবির একবার নিজের লেখা কবিতার একটা লিঙ্ক পাঠিয়ে পড়তে বললেন।

বিস্তারিত»

যা পড়ছি এখন ।। ভাঙো দুর্দশার চক্র

কদিন ধরে পড়ছি আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ স্যারের নতুন বই ভাঙো দুর্দশার চক্র । কয়েক পৃষ্ঠা পড়ার পরই মনে হলো হতাশাগ্রস্ত লক্ষ্যহীন কিশোর-তরুণ কিংবা কেবল অর্থ উপার্জনের পেছনে ঊর্ধ্বশ্বাসে ছুটতে থাকা বন্ধুটির হাতে এই বইটি পৌঁছে দেয়া অত্যন্ত জরুরি।

চারপাশে বাড়ছে আত্মকেন্দ্রিকতার খোলসে বন্দী মানুষের সংখ্যা। এর সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিবাহ বিচ্ছেদ, আত্মহত্যা, পরমত অসিহষ্ণুতা। মাঝে মাঝে প্রশ্ন জাগে,

বিস্তারিত»

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ৪

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ১
আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ২
আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ৩

আট (ক)

আমি এখন এই লেখাটার জটিলতম অংশে আছি।
এতক্ষন যা যা লিখেছি, তা ছিল মূলতঃ আত্মপ্রেমীদের নিয়ে।
যারা আত্মপ্রেমী নন, তাঁরা তাতে নিজেকে সরাসরি খুব একটা খুজে পান নাই।

বিস্তারিত»

ক্যাডেট কথিকাঃ পর্ব ১

নুসরাত ম্যাডাম পাটভাঙা সুতির শাড়ি পরতেন টানটান করে, সাথে ম্যাচিং লাল রঙের ব্লাউজ। ঠোঁটে হালকা লিপস্টিকের রেখা, কপালে উদীয়মান সূর্যের মত একখানা টিপ গোটা মুখটি উজ্জ্বল করে রেখেছে। সাজপোশাক বলতে ঐটুকুনই। কলেজ চলাকালীন সময় ম্যাডামদের লালপেড়ে সাদা শাড়ি পরবার চল ছিল, অন্য সময়ে তাঁরা সিভিল জামাকাপড় পরতে পারতেন। ছিপছিপে পাতলা গড়নের ম্যাডাম হাঁটতেন ঝড়কে পেছন ফেলে, ঈষৎ ভেজা কন্ঠে তিনি কথা বলতেন স্পষ্ট উচ্চারণে। কাঁধ অব্দি লম্বা চুল টেনে বাঁধতেন পেছনে।

বিস্তারিত»

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ৩

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ১

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ২

ছয়

সম্পর্ক নিয়ে আত্মপ্রেমীদের জটিলতার অনেক ফ্যাক্ট শুনালাম।
এবার কিছু অপিনিয়ন শোনাই।
১) অন্যরা সম্পর্কে ঢোকে তা থেকে কিছু নৈকট্য জনিত যৌথ স্বস্তিকর অথবা আনন্দময় অভিজ্ঞতা পেতে। কিন্তু আত্মপ্রেমীরা সম্পর্কে ঢোকে, ইচ্ছামাফিক একটি সম্পর্কে ঢোকায় নিজের সামর্থ্য যাচাই করতে।

বিস্তারিত»

পরিবর্তনের পরিবর্তন চাই।

কলোম্বতে বাংলাদেশ নিজেদের ১০০ তম টেস্ট খেলতে কাল মাঠে নামবে।যাত্রাটা প্রায় ১৭ বছরের। সময়টা কম না। যদিও আমাদের দাবী আমরা নতুন দল। ধীরে ধীরে উন্নতি করছি। হয়ত তাই। অন্যান্য দলগুলোর তুলনায় আমরা আসলেই অনেক কম সময় খেলেছি। অনেক নতুন একটা দল। কিন্তু সে অজুহাতে বারবার নিজেদের অব্যবস্থাপনাকে এড়িয়ে যাওয়া যায় না। আমার এই লেখাটা সম্পূর্ণ সমালোচনা পূর্ণ একটা লেখা।সাথে কিছু না পাওয়া আবেগ। ৯৯ টেস্ট,৮ জয়,৭৬ পরাজয় ও ১৫ ড্র।

বিস্তারিত»

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ২

আত্মকেন্দ্রিকতা ও আত্মপ্রেম সম্পর্কিত জটিলতা – ১

চার

গতপর্বে আলোচনা করেছিলাম, আত্মকেন্দ্রিক আচরন থেকে আত্মপ্রেমের আচরনে উত্তরনের প্রক্রিয়াটি।
এই পর্বে আরও একটু অগ্রসর হবো।
একবার কেউ আত্মপ্রেমের আচরনে অভ্যস্ত হয়ে উঠলে এ থেকে আত্মপ্রেমময় ব্যক্তিত্ব অর্জনটা তাঁর জন্য আর খুব বেশি দুরত্বে থাকে না।
দেখা যায় কোনো বাঁধা না পেলে তাঁরা আপনা আপনিই এমন সব কাজ করতে শুরু করেন যে কারনে অন্যরা যেন তাদেরকে সবসময় আলোচনার মধ্যমনি করে রাখে।

বিস্তারিত»

শেষ আশ্রয়

নাম্বারটাও বন্ধ করে দিলে!
কিছুই রাখলে না আমার জন্য!
কই? কখনো তো কোন বিরক্ত করি নি
তবে কেন?

জান! মাঝে মাঝে যে
রং নাম্বার গুলো থেকে কল আসত তোমার
ওইযে, যে কল গুলোয় ওপার থেকে
কেউ কথা বলত না-
তুমি হ্যালো হ্যালো বলে
বিরক্ত হয়ে ফোন রেখে দিতে,
হয়ত ইংরেজীতে খুব সুন্দর করে বলতে-
“স্ট্রেঞ্জ!

বিস্তারিত»

অত্যাচার

বাবা বাড়ি ছেড়ে চলে গেছেন। এও কি হতে পারে? সম্ভব? তবে তিনি গেছেন। এ সত্যটি জানার পর দুটি বিষয় আমাদের সবার নজরে এল। বাবাকে নিয়ে চিন্তা করতে হবে এই বিষয়টিই এর আগে কারো মনে হয়নি। তাঁর জন্য সবাই কাতর হয়ে পড়লাম। এ ঘটনার আগে তাঁর অনুপস্থিতি আমরা কেউ কখনো টের পাইনি। বাবাকে ভালোবাসি কি-না তা নিয়ে কখনো ভাবিনি, ভাবতে হয়নি আসলে। তিনিই বোধহয় আমাদের ভালোবাসা চাননি।

বিস্তারিত»

বেস্ট ফ্রেন্ড

আজ নীলার বিয়ে।মা মরা বাড়ি র একমাত্র মেয়ে।আদর টা তাই ওর একটু বেশি। বাবা কখনই মেয়ের কোনো আব্দারের সাথে পেরে ওঠেননি।বাবাকেও অনেক ভালোবাসে নীলা।এক এক করে সব অতিথিরাই আসছে।এখোনো আসেনি কেবল নীলা র বেস্ট ফ্রেন্ড রাফি।
..
বাবাকে জিজ্ঞেস করে নীলা
-বাবা রাফি কি এসেছে?
-না মা ও তো এখনো আসেনি।
প্রচন্ড রাগ হয় নিলার।রাফিটা এমন কেন?ও না আমার বেস্ট ফ্রেন্ড।অথচ আমার বিয়ের দিনটাতেও কি এমন কাজ ওর?

বিস্তারিত»

যুদ্ধ এবং শৈশব

যুদ্ধ এবং শৈশব

“বালক হিসেবে আপনি যখন যুদ্ধে যাবেন তখন আপনার মধ্যে অমরত্বের মোহ কাজ করবে। অন্যরা নিহত হবে; কিন্তু আপনি নন…” – আর্নেস্ট হেমিংওয়ে

স্বাধিকার বা স্বাধীনতার জন্যে সংগ্রামের অনিবার্য পরিণতিই যুদ্ধ। এটা পৃথিবীর আদিমতম সত্যগুলোর একটি। যুদ্ধের রকমফের যাই হোক না কেন, কোন দেশ বা জাতি বা নৃগোষ্ঠীই এই সত্যকে পাশ কাটিয়ে যেতে পারেনি। নিজেদের লুপ্ত অধিকার পুনঃঅর্জনের জন্য অথবা আপনার ওপরে জবরদস্তি করে চেপে বসা কাউকে প্রতিহত করবার জন্য যুদ্ধে আপনাকে অবতীর্ণ হতেই হয়।

বিস্তারিত»